Cinque Terre

Jamiatul Ulumil Islamia, Pabna

জামিয়াতুল উলূমিল ইসলামিয়া, পাবনা।

ধর্মীয় শিক্ষা জাতির মেরুদণ্ড। কেবল ধর্মীয় শিক্ষাই এই মেরুদণ্ড সুদৃঢ় করতে সক্ষম। নববী ইলমের আলোয় আলোকিত ইসলামের একদল দক্ষ রাহবার তৈরি করার লক্ষ্যে ১৮৬৬ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় বিশ্ববিখ্যাত ইসলামী সার্বজনীন বিদ্যাপীঠ দারুল উলূম দেওবন্দ। আর দারুল উলূম দেওবন্দের শিক্ষা ধারা ও আদর্শ অনুসরণে প্রতিষ্ঠিত হতে থাকে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে অসংখ্য দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। যেগুলো শান্তিময় আদর্শ সমাজ বিনির্মাণে মানুষের ধর্মীয় প্রয়োজন পূরণে বিরাট ভূমিকা পালন করে আসছে।

জামিয়াতুল উলূমিল ইসলামিয়া, পাবনা দারুল উলূম দেওবন্দের শিক্ষা ধারায় ইসলামী ও আধুনিক শিক্ষার সমন্বয়ে পরিচালিত এক ব্যতিক্রমধর্মী দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। জামিয়ার সংক্ষিপ্ত পরিচিত নিন্মে তুলে ধরা হলো।

নাম ও অবস্থান

নাম : জামিয়াতুল উলূমিল ইসলামিয়া, পাবনা।

অবস্থান : পাবনা শহরে অবস্থিত ঐতিহ্যবাহী প্রাচীনতম গরীবুল্লাহ জামে মসজিদ সংলঘ্ন এ প্রতিষ্ঠানটির অবস্থান।

প্রতিষ্ঠা ও প্রতিষ্ঠাতা

১৪৩৬ হিজরী মোতাবেক ২০১৫ খ্রিস্টাব্দে পাবনা জেলার কৃতি সন্তান বিশিষ্ট আলেমে দ্বীন আলেমকুল শিরমণি বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশ ( কওমী মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড ) -এর চেয়ারম্যান হাটহাজারী মাদরাসার পরিচালক পীরে কামেল আল্লামা শাহ্ আহমাদ শফী দা.বা. -এর সুযোগ্য খলীফা হযরত হাফেয মাওলানা মুফতী মুহাম্মাদ ইমরান খান দা.বা. ও মেহেরপুর জেলার কৃতি সন্তান বিশিষ্ট আলেম, লেখক ও গবেষক হযরত হাফেয মাওলানা মুফতী হাফিজুর রহমান দা.বা. এর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন।

লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য

* প্রাথমিকস্তর থেকে পর্যায়ক্রমে তাকমীল ( দাওরায়ে হাদীস ), তাফসীর, উলূমিল হাদীস, উলূমিল ফিকহ ও আরবী সাহিত্য এবং আধুনিক শিক্ষা ও গবেষণার ব্যবস্থাসহ এ জামিয়াকে একটি মান সম্মত প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তোলার জন্য যুগোপযোগী শিক্ষা ব্যবস্থা গ্রহণ করা।

* আরবী ভাষা ও মাতৃভাষার ব্যাপারে সর্বাধিক গুরুত্ব প্রদান।

* সুযোগ্য-দক্ষ আলেম দ্বীন, ইসলামী চিন্তাবিদ, গবেষক, লেখক ও মুবাল্লিগ গড়ে তোলার মাধ্যমে সর্বস্তরে দ্বীনের আলো পৌঁছানোর ব্যবস্থা করা।

জামিয়ার বৈশিষ্ট্য

* ইসলামী ও আধুনিক শিক্ষার সমন্বয়ে রাজনীতি মুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

* কওমী মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড -এর অধীনে পরীক্ষায় অংশ গ্রহণের ব্যবস্থা।

* দক্ষ ও সচেতন শিক্ষকমণ্ডলী দ্বারা পরিচালিত।

* নিরিবিলি ও মনোরম পরিবেশে পাঠদান।

* প্রাথমিক চিকিৎসা সেবা।

* নিয়মিত খেলা ধুলা ও শরীরচর্চা।

* সার্বক্ষণিক সি সি ক্যামেরা দ্বারা নিয়ন্ত্রিত।

* সার্বক্ষণিক নিজস্ব জেনারেটরের সুব্যবস্থা।